৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এসাইনমেন্ট উত্তর ১৬তম সপ্তাহ

 (সম্পুর্ণ সমাধান) ৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এসাইনমেন্ট উত্তর ১৬তম সপ্তাহ প্রকাশিত হয়েছে । প্রিয় শিক্ষার্থী বন্ধুরা । তোমাদের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ১৬তম এসাইনমেন্ট এর প্রশ্ন প্রকাশিত হয়েছে । তাই তোমাদের প্রশ্ন বিষয়ক ধারণা দিতে আমার নিয়ে আসলাম বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এসাইনমেন্ট এর সমাধান । যা দেখে তোমরা ধারণা পাবে কি করে প্রশ্নের উত্তর দিতে হয় ।

৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এসাইনমেন্ট উত্তর ১৬তম সপ্তাহ

৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এসাইনমেন্ট উত্তর ১৬তম সপ্তাহ

Class 6 BGS Assignment Answer 16th Week

৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এসাইনমেন্ট উত্তর ১৬তম সপ্তাহ

অধ্যায় ও অধ্যায়ের শিরােনাম 

তৃতীয় অধ্যায় : বিশ্বভৌগােলিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশ

পাঠ্যসূচিতে অন্তর্ভুক্ত পাঠ নম্বর ও বিষয়বস্তু
  1. পাঠ -১ ভারত উপমহাদেশের নগর সভ্যতা। 
  2. পাঠ -২। উয়ারী-বটেশ্বর। 
  3. পাঠ- ৩ মহাস্থানগড় (পুন্ড্র নগর) 
  4. পাঠ - ৪ ও ৫ প্রাচীন বিশ্বসভ্যতা।

অ্যাসাইনমেন্ট বা নিধারিত কাজ

ইউনেস্কো ঘােষিত বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ হিসেবে সুন্দরবনের গুরুত্ব তুলে ধরে একটি পােস্টার উপস্থাপন/তৈরি করাে।


নির্দেশনা

  1. উপস্থাপনে সুন্দরবনের বিভিন্ন তথ্য ও ছবি ব্যবহার করা বাঞ্ছনীয়। 
  2. ছবি হাতে আঁকা বা অন্য কোনাে উৎস থেকে সংগ্রহ করা যেতে পারে। 
  3. পােস্টারে সুন্দরবনের গুরুত্ব বুলেট পয়েন্টে উপস্থাপন করা যাবে।
৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এসাইনমেন্ট উত্তর ১৬তম সপ্তাহ

সুন্দরবন ৬ ডিসেম্বর ১৯৯৭ সালে ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে। এটি বাংলাদেশ ও ভারতীয় অংশ হলেও বাংলাদেশেই বেশিরভাগ অঞ্চল রয়েছে এবং ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায় ভিন্ন ভিন্ন নামে সুচিবদ্ধ হয়েছে। যথাক্রমে সুন্দরবন ও সুন্দরবন জাতীয় উদ্যান নামে।


সুন্দরবনের অবস্থানঃ

সুন্দরবন হলাে বঙ্গোপসাগরের উপকূলবর্তী অঞ্চলে অবস্থিত একটি প্রশস্ত বনভুমি। বিশ্বের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের মধ্যে এটি অন্যতম। পদ্মা-মেঘনা, ও ব্রহ্মপুত্র নদীদ্বয়ের অববাহিকায় বদ্বীপ এলাকায় অবস্থিত এই অপরুপ বনভুমি।বাংলাদেশের খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগের হাট, পটুয়াখালী ও বরগুনা জেলা মিলে সুন্দরবনের অংশ। সুন্দরবনের মােট আয়তন ১০ হাজার বর্গকিলােমিটার। এর মধ্যে বাংলাদেশের অংশ হলাে ৬০১৭ বর্গকিলােমিটার বাকী অংশ হলাে ভারতীয়দের।

সুন্দরবনে জালের মতাে জড়িয়ে রয়েছে সামুদ্রিক স্রোতধারা কাদা চর এবং ম্যানগ্রোভ বনভুমির লবনাক্ততাসহ ক্ষুদ্রায়তন দ্বীপমালা। বাংলাদেশের র অর্থনীতিতে সুন্দরবনের গুরুত্বপুর্ন ভুমিকা রয়েছে। এটি দেশের বনজ সম্পদের একক বৃহত্তম উৎস। এই বন কাঠের উপর নির্ভরশীল শিল্পে কাচামালের জোগান দেয়। এই বন বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে আমাদের রক্ষা করে।

বাংলাদেশে সুন্দরবনের গুরুত্ব নিম্নরুপঃ

১. সুন্দরবনে প্রচুর পরিমান সুন্দরী, গেওয়া, বনকাঠি, গরান ও কেওড়া সহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রয়েছে। এই গাছগুলাে বাংলাদেশের অর্থনীতিকে প্রচুর সমৃদ্ধ করেছে। 
২. সুন্দরবন বনজ সম্পদ হতে প্রচুর কাঠ, জ্বালানি সংগ্রহ করা হয়। 
৩. সুন্দরবন থেকে প্রচুর মধু সংগ্রহ করা হয়। 
৪. এই বন থেকে প্রচুর শামুক ও ঝিনুক সংগ্রহ করা হয়। সুন্দরবনে মােট ৩৩৪ প্রজাতির উদ্ভিদ রয়েছে।  
৫. সুন্দরবনের জেলেরা প্রচুর পরিমান মাছ ধরে তাদের জীবিকা নির্বাহ করে থাকে। 
৬. সুন্দর বনে প্রচুর পরিমানে উদ্ভিদ থাকায় প্রাণীকুল সহজে টিকে থাকতে পারে। 
৭ সুন্দরবনে যে সমস্ত প্রাণী ও উদ্ভিদ রয়েছে তা পরিবেশের জন্য অনুকুল। 
৮. এই বনে প্রচুর অর্থনৈতিক কর্মকান্ড হয়ে থাকে বলে অনেক লােক সহজে জীবিকা নির্বাহ করে। 
৯. এই বন আছে বলে বাংলাদেশের মত নিম্ন অঞ্চল এলাকায় পরিবেশ বিপর্যয় ঘটছে না। 
১০.এই বনে হাজার ও রকম প্রাণী বসবাস করে বিধায় এক দিকে প্রাণী বসবাসের অনুকুল স্থান ও টিকে থাকল। 
১১. সুন্দরবন বাংলাদেশের পর্যটক খাতকে সমৃদ্ধ করেছে। 
১২. সুন্দরবন দেখতে প্রতি বছর বিদেশি পর্যটক বাংলাদেশে আসে ফলে বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ হচ্ছে। 
১৩. এই বন থাকার ফলে বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে ব্যাপক পরিচয় লাভ করে। 
১৪. সুন্দরবন ভূমিক্ষয় রােধ করছে এবং বাতাসে অক্সিজেনের পরিমাণ বৃদ্ধি করছে। 
১৫. সুন্দরবন বিভিন্ন ভেষজ উদ্ভিদের যােগান দিচ্ছে।

পরিশেষে আমরা বলতে পারি যে, বাংলাদেশের যত প্রাকৃতিক সম্পদ রয়েছে সুন্দরবন তাদের মধ্যে অন্যতম। এর গুরুত্ব ও তাৎপর্য শুধু বাংলাদেশের নয় পুরাে বিশ্বে এর সুযােগ সুবিধা ভােগ করছে। বিশ্বের একমাত্র ম্যানগ্রোভ বন হচ্ছে আমাদের সুন্দরবন। যা বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে সম্মানের আসনে নিয়েছে। সুন্দরবন আল্লাহ প্রদত্ত এক প্রাকৃতিক নিয়ামত। এ সম্পদকে কাজে লাগাতে পারলে বাংলাদেশ আরাে সমৃদ্ধশালী হতে পারবে।

Conclusion: 


প্রিয় শিক্ষার্থী বন্ধুরা, আশা করি তোমরা সম্পূর্ণ ধারণা পেয়ে গেছো । তো এই ছিল তোমাদের ১৬তম সপ্তাহের বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এসাইনমেন্ট এর সমাধান । মনে রাখবে, যে ছাত্র অন্যের লেখা হুবহু পরিক্ষার খাতায় লেখবে, সে কখনোই ১০০% নম্বর পাবে না । তোমাদের নিজেদের প্রশ্নের সমাধান লিখতে হবে । আমাদের এসাইনমেন্ট উত্তর নমুনা মাত্র ।

Last Line : ৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এসাইনমেন্ট উত্তর ১৬তম সপ্তাহ

Post a Comment

0 Comments